শিরোনাম :

ভাস্কর্যে আঘাত করা মানে বাংলার সতের কোটি মানুষকে আঘাত করা

শাহেদ ফেরদৌস হিরু। / ১২৯ বার
আপডেট সময় : সোমবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০২০

  • দৈনিক কক্সবাজার প্রতিদিন পত্রিকার বর্ষপূর্তিতে শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে প্রধান অতিথি (ভার্চুয়াল) তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডাঃ মো. হাসান মুরাদ এমপি বলেন,  সংবাদপত্র দেশের সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিসহ সকল চিত্র তুলে ধরার জন্য গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম। সংবাদপত্র হচ্ছে রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ। ইলেকট্রনিক মিডিয়া ও প্রিন্ট মিডিয়ার মাধ্যমে আমরা সারাদেশের সামগ্রিক চিত্র দেখতে পারি, জানতে পারি, শুনতে পারি এবং বুঝতে পারি। দেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য,  শিল্প, সংস্কৃতি ও চেতনা সবকিছুকেই ধারন করে যেন কক্সবাজার প্রতিদিন তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করে।

সাম্প্রতিক বিষয় নিয়ে তিনি আরো বলেন, অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশে সাম্প্রদায়িক অপশক্তি ও ধর্মান্ধ মৌলবাদীদের প্রতিহত করতে গণমাধ্যম কর্মীদের এগিয়ে আসতে হবে। ভাস্কর্যে আঘাত করা মানে পুরো বাংলাদেশকে আঘাত করা। বাংলার সতের কোটি মানুষকে আঘাত করা।

সোমবার ৭ ডিসেম্বর বেলা ১২ টায় হোটেল হোয়াইট অর্কিড এর হল রুমে দৈনিক কক্সবাজার প্রতিদিন এর ৩য় বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন তিনি।

প্রধান আলোচক কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক এড. সিরাজুল মোস্তফা বলেন, সাংবাদিকেরা সংবাদ জগতের সৈনিকের মতো। তারা আক্রমণের শিকার হয়, তাদের জীবনহানি হয়। তাদের সমালোচনা হয় এবং অনেক ক্ষেত্রে তাদেরকে অনেকেই এমন ব্যবহার করে যেন সাংবাদিকতা ছেড়ে দিতে হয়। একটা কথা মনে রাখতে হবে, দেশ যদি এগিয়ে যায় সাংবাদিকতার পেশাও এগিয়ে যাবে। আর সাংবাদিকতার পেশা যদি এগিয়ে যায়, সাংবাদিকদের অর্থনৈতিক জীবন, সামাজিক জীবন, তাদের মান-মর্যাদাও স্বাভাবিকভাবে এগিয়ে যাবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল বলেন, পত্রিকা হতে হবে গণমানুষের ভাষা, পত্রিকা হতে হবে পৃথিবীর মুখ। একজন সাংবাদিকের চোখ দেখলে যাতে মানুষ মনে করে, তার কাছে পৃথিবীর সমস্ত তথ্য রয়েছে, তাদের কাছে দেশের সমস্ত তথ্য রয়েছে। জনগণ যদি সে সমস্ত চোখের দিকে তাকিয়ে যদি কোন ভাষা, তথ্য, শিক্ষা না পায়, তাহলে কিন্তু হবে না। পত্রিকার ভাষা দেখে পাঠক সৃষ্টি হতে হবে। মেধার সমন্বয়ে সেই পাঠক সৃষ্টি করতে হবে।

সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক বলেন,দেশে এক সময় ইলেকট্রনিক মিডিয়া বলতে ছিল শুধু বিটিভি। কিন্তু আওয়ামীলীগ সরকার আসার পর থেকে অনেকগুলো অনলাইন, ইলেকট্রনিক মিডিয়া ও প্রিন্ট মিডিয়া অনুমোদন দিয়েছে। যা অতীতে কোন সরকার দেয় নি। যদি শুধু মফস্বল চিন্তা করি কক্সবাজারে বিশটির অধিক সংবাদপত্র আছে। যার কারণে পাঠকরা বিভিন্ন পত্রিকা পড়ে বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ বের করতে পারে। কারণ সংবাদপত্র দুই- তিনটি পড়লেই বাস্তব সত্য বের করতে পারে সেই সুযোগ করে দিয়েছেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সাংবাদিকদের ওয়েজ বোর্ড থেকে শুরু করে সবকিছু নিয়ে তিনি কাজ করছেন।

কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র মুজিবুবুর রহমান বলেন, কক্সবাজারের অন্যতম নিয়মিত পত্রিকা দৈনিক কক্সবাজার প্রতিদিন চতুর্থ বর্ষে পদার্পন করেছে। তারা বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে পাঠকদের মন জয় করে নিয়েছে। আমি কক্সবাজার প্রতিদিনের উত্তরোত্তর সফলতা কামনা করছি।

অগ্রণী ব্যাংক এর সাবেক পরিচালক শাহজাদা মহিউদ্দিন বলেন, রোহিঙ্গা সংকট থেকে শুরু করে জাতীয় দুর্যোগের সময় কক্সবাজারের পত্রিকাগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে।

বঙ্গবন্ধুর পক্ষে, দেশের স্বাধীনতার পক্ষে দৈনিক কক্সবাজার প্রতিদিন’র ভূমিকা অব্যাহত থাকবে এই প্রত্যাশা করছি। কুষ্টিয়ায় বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ভাঙা হয়েছে। ভাঙ্গা হয়েছে বঙ্গবন্ধুর তর্জনী উঁচানো হাত। কারণটা কি? কারণ একটাই, এখানে অন্য কোন কারণ নাই। এখানে ভাস্কর্য, মূর্তি এসব ওদের উদ্দেশ্য না। এই তর্জনী উঁচিয়ে বঙ্গবন্ধু পাকিস্তানিদের বাংলাদেশ থেকে বিতাড়িত করেছে। এই তর্জনীর কারণে স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। এই তর্জনীর প্রতি তাদের সেই ক্ষোভ ১৯৭১ সালের স্বাধীনতা যুদ্ধ থেকে। আর এই বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে মুখের ওপর আঘাত করা হয়েছে। ৭ই মার্চের ভাষণে বঙ্গবন্ধু উচ্চারণ করেছিলেন, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম। এই মুখের প্রতি, এই তর্জনীর প্রতি তাদের ক্ষোভ। সেই জায়গা থেকে ভাস্কর্যের ওপর আঘাত করা হয়েছে। আমরা বাংলাদেশের ১৭ কোটি মানুষ কিন্তু একেকজন বঙ্গবন্ধু, একেকজন ভাস্কর্য। এই বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যে আঘাত করে, মানুষের মন থেকে বঙ্গবন্ধুকে মুছা যাবে না।

প্রেস ক্লাব এর সভাপতি মাহবুবুর রহমান বলেন, কক্সবাজারের অন্যতম নিয়মিত পত্রিকা দৈনিক কক্সবাজার প্রতিদিন চতুর্থ বর্ষে পদার্পন করেছে। তারা বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশের মাধ্যমে পাঠকদের মন জয় করে নিয়েছে। আমি কক্সবাজার প্রতিদিনের উত্তরোত্তর সফলতা কামনা করছি।

প্রেস ক্লাব এর সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের চৌধুরী বলেন, অনেক পত্রিকার ভীড়ে সর্বশেষ প্রকাশিত পত্রিকা দৈনিক কক্সবাজার প্রতিদিন। এর মধ্যে পত্রিকাটি তিন বছর পার করে চতুর্থ বর্ষে পদার্পণ করেছে। একটা পত্রিকার দায়িত্ব সমাজকে শিক্ষিত করা, সমাজকে বিনোদন দেয়া, সমাজকে সঠিক তথ্য দেয়া। বর্তমানে মিডিয়া শিল্প অনেক সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। আজকের সমস্ত সংবাদ মাধ্যম খুব কঠিন সময় পার করছে সেটা করোনা পরিস্থিতির কারনে হোক বা অন্যান্য পরিস্থিতির কারনে হোক। সরকার অনেক উদ্যোগ গ্রহণ করেছে, আমরাও অনেক প্রস্তাব রেখেছি। ওয়েজবোর্ড অনুযায়ী সব সুবিধা ভোগ করলেও সাংবাদিকতার মান ও সংবাদপত্রের মানন্নোয়নে আমরা খুব বেশি আন্তরিক না। সরকারেরও এগিয়ে আসা উচিৎ আমাদেরও এগিয়ে আসা উচিৎ সংকট থেকে উত্তোরনের জন্য।

দৈনিক কক্সবাজার প্রতিদিন পত্রিকার সম্পাদক বিপ্লব কান্তি দে’র সভাপতিত্বে, প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী (ভার্চুয়াল) ডাঃ মো. হাসান মুরাদ এমপি, প্রধান আলোচক বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ এর ধর্ম বিষয়ক সম্পাদক এড. সিরাজুল মোস্তফা, সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমল,  সংসদ সদস্য আশেক উল্লাহ রফিক,  কক্সবাজার পৌরসভার মেয়র ও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মুজিবুর রহমান, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামীলীগ এর যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ও অগ্রণী ব্যাংক এর সাবেক পরিচালক শাহজাদা মহিউদ্দিন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা) প্রসূন কুমার চক্রবর্তী, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার পংকজ বড়ুয়া, প্রেস ক্লাব এর সভাপতি মাহবুবুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক আবু তাহের চৌধুরী, সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রাম মোহন সেন, সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নাছির উদ্দিন প্রমুখ।

এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন দৈনিক কক্সবাজার প্রতিদিন এর নির্বাহী সম্পাদক মেজবাউর রহমান, সহযোগী সম্পাদক আল হারুন সিদ্দিকী, সহকারী সম্পাদক মোঃ ইসলাম, দৈনিক কক্সবাজার প্রতিদিনের সকল প্রতিনিধিসহ রাজনীতিবিদ, জনপ্রতিনিধি, শিক্ষক,  সাহিত্যিক, প্রিন্ট মিডিয়া ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিকবৃন্দ। উক্ত অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন দৈনিক কক্সবাজার প্রতিদিন পত্রিকার  প্রকাশক মোঃ রিয়াদ।

এছাড়াও অনুষ্ঠানে শিক্ষা ক্ষেত্রে অবদান রাখায় প্রফেসর মোস্তাক আহমদকে মরণোত্তর সম্মাননা।গ্রহন করেন তাঁর কন্যা রামু সরকারি কলেজের সহকারি অধ্যাপক আকতার জাহান, মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ ভূমিকা পালন করায় কামাল হোসেন চৌধুরীকে সম্মাননা স্মারক ও সাংবাদিকতায় সফলতার সাথে অবদান রাখায় প্রিয়তোষ পাল পিন্টুকে সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর